বাংলাদেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রীর থাইল্যান্ডে দ্বিপাক্ষিক সফর

ব্যাংকক, ২৪ মে ২০২২

তথ্য ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনায়েদ আহমেদ পলক ২৩- ২৪ মে ২০২২ থাইল্যান্ডে দ্বিপাক্ষিক সফর করছেন । সফরের প্রথম দিন সকালে তিনি থাইল্যান্ডের ডিজিটাল ইকনোমি ও সোসাইটি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী Chaiwut Thanakamanusorn- এর সাথে সাক্ষাৎ করেন। বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী দুই দেশের মধ্যকার সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্কের কথা উল্লেখ করেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার অব্যবহিত পরে আসিয়ানের অন্যতম সদস্য রাষ্ট্র থাইল্যান্ড কর্তৃক বাংলাদেশকে স্বীকৃতি জানানোয় তিনি থাইল্যান্ডের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। তিনি বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডের মধ্যকার কূটনৈতিক সম্পর্কের সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনে দুই দেশের আইসিটি খাতে সহযোগিতা আরও বৃদ্ধির জন্য থাই মন্ত্রীকে আহবান জানান ।

মাননীয় প্রতিমন্ত্রী বর্তমান সরকারের আমলে তথ্য প্রযুক্তি খাতের উল্লেখযোগ্য সাফল্য ও গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ সম্পর্কে থাই তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রীকে অবহিত করেন। তিনি বর্তমান সরকারের রূপকল্প ২০৪১ বিষয়ে থাই মন্ত্রীর কাছে তুলে ধরেন এবং দুই বাংলাদেশের সাথে তথ্য প্রযুক্তি খাতে থাই বিনিয়োগ ও সহযোগিতা বৃদ্ধিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। মন্ত্রী বিমসটেক সদস্যভুক্ত রাষ্ট্র সমূহের মধ্যে অভিন্ন তথ্য সুরক্ষা বিধি তৈরির ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি আরও বলে যে বর্তমান সরকার সকল নাগরিকের ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং প্রতিটি নাগরিকের ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষার লক্ষ্যে সরকার তথ্য সুরক্ষা আইন তৈরির পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে এবং এ লক্ষ্যে তথ্য প্রযুক্তি প্রন্ত্রণালয় কাজ করছে।   

বৈঠক শেষে প্রতিমন্ত্রী থাই মন্ত্রীকে আগামী ২০২২ সালের ডিসেম্বর মাসে ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-এ অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানান। থাই মন্ত্রী এ আমন্ত্রণ সাদরে গ্রহণ করেন। 

এরপর মাননীয় প্রতিমন্ত্রী এশিয়ান ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি (এআইটি)-এর  প্রেসিডেন্ট Dr . Eden Woods-এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এআইটি প্রেসিডেন্ট তাঁর প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করেন এবং  এআইটি-তে অধ্যয়নরত বাংলাদেশি গ্রাজুয়েটদের ভূয়সী প্রশংসা করেন ।

মাননীয় প্রতিমন্ত্রী এআইটি-র সাথে তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতা আরও বৃদ্ধির প্রতি জোর দেন। তিনি আইসিটির বিভিন্ন ক্ষেত্রে গ্রাজুয়েশন এবং পোষ্ট গ্রাজুয়েশন ডিগ্রির জন্য তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় বৃত্তি চালুর উদ্যোগ গ্রহণের কথা বলেন। এ ছাড়া বিভিন্ন মেয়াদের প্রশিক্ষণ কোর্সে ছাত্র, উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণের জন্য  এ আইটির সহযোগিতা কামনা  করেন। এআইটি-র  প্রেসিডেন্ট এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদানের প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন।  এরপর মাননীয় প্রতিমন্ত্রী (এআইটি)-এর Entrepreneur centre e (এআইটি)-এ কর্তৃক আয়োজিত Future of innovation in Bangladesh and opportunities for global collaboration – শীর্ষক একটি সেশন এ অংশগ্রহণ করেন। সেশনটি ভার্চুয়াল প্লাটফর্মেও প্রচারিত হয় । সেশন এ এআইটি-এর  প্রেসিডেন্ট, অধ্যাপকবৃন্দ, অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীগণ অংশগ্রহণ করেন। তাঁরা বর্তমান সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের ভূয়সী প্রশংসা করেন। সেশন শেষে মাননীয় প্রতিমন্ত্রী প্রশ্নোত্তর পর্বে ও অংশগ্রহণ করেন।

আজ সফরের দ্বিতীয় দিন সকালে তিনি ব্যাংককে অবস্থিত UNESCAP এর সদর দপ্তরে Executive Secretary HE Ms Armida Salsiah Alisjahbana এর সাথে বৈঠক করেন। বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী তথ্য প্রযুক্তি ক্ষেত্রে গত ১৩ বছরে বর্তমান সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ ও অর্জনসমূহ তুলে ধরেন । যুব সম্প্রদায় এবং নারী জনগোষ্ঠীকে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে তাঁর মন্ত্রণালয়ের নানা প্রকল্প ও এর অগ্রগতি সম্পর্কে Executive Secretary কে অবহিত করেন। বৈঠকে UNESCAP এর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। এরপর UNESCAP ও আইসিটি ডিভিশন কর্তৃক Bangladesh Startup Ecosystem Assesment Report -এর মোড়ক উন্মোচন করেন। এ রিপোর্টে বাংলাদেশের Start Up ব্যবসার বিভিন্ন দিক সমূহ নিয়ে একটি গবেষণা পরিচালিত হয়।UNESCAP এর ট্রেড, ইনভেস্টমেন্ট ও ইনোভেশন বিভাগের সরাসরি তত্ত্বাবধানে ও বাংলাদেশের আইসিটি বিভাগের সহযোগিতায় এ গবেষণাটি পরিচালিত হয়। মোড়ক উন্মোচন শেষে UNESCAP এর ট্রেড, ইনভেস্টমেন্ট ও ইনোভেশন বিভাগের ডিরেক্টর Ms Rupa Chanda বাংলাদেশের Start Up ব্যবসার নানাবিধ দিক নিয়ে আলোচনা করেন এবং এর চ্যালেঞ্জসমূহ ও ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা বিষয়ে আলোচনা করেন। 

বৈঠক সমূহে থাইল্যান্ডে নিযুক্ত বাংলাদেশের মান্যবর রাষ্ট্রদূত ও দূতাবাসের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।