ব্যাংককে যথাযোগ্য মর্যাদায় স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও জাতীয় দিবস পালিত

২৬ মার্চ শুক্রবার যথাযোগ্য মর্যাদায় দূতাবাসে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও জাতীয় দিবস পালন করা হয়। কোভিড-১৯ প্রেক্ষাপটে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি ও অনুশাসন মেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে দিবসের অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়। সকালে দূতাবাস প্রাঙ্গনে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে দিবসের কর্মসূচী শুরু করেন মান্যবর রাষ্ট্রদূত জনাব মোঃ আব্দুল হাই। অতঃপর  বিশেষ দোয়া/মোনাজাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ১৫ আগস্টে শহীদ তাঁর পরিবারবর্গ এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী শহীদদের আত্মার মাগফিরাত ও দেশ ও জাতির শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করা হয়।

২।           স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও জাতীয় দিবসে দূতাবাসের পক্ষ থেকে তাঁর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মান্যবর রাষ্ট্রদূত। অতঃপর দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণীসমূহ পাঠ করে শোনান দূতাবাসের কর্মকর্তাবৃন্দ। সবশেষে মান্যবর রাষ্ট্রদূত তাঁর মূল্যবান বক্তব্য প্রদান করেন। রাষ্ট্রদূত তাঁর বক্তব্যের শুরুতেই স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। রাষ্ট্রদূত তাঁর বক্তব্যে ১৯৭১ সালে ফিরে গিয়ে স্বাধীনতার ঘোষনপত্র প্রণয়ন এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনার উপর আলোকপাত করেন। তিনি যার যার অবস্থান থেকে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তুলতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দুরদর্শী নেতৃত্বে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান।

৩।           ২৬ শে মার্চ সন্ধ্যায় যথাযথ কোভিড-১৯ স্বাস্থ্যবিধি পালন করে একটি অভ্যর্থনা ও নৈশ ভোজের আয়োজন করা হয়। এতে থাইল্যান্ডের সরকারী/বেসরকারী গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ ও ব্যাংককের কূটনৈতিক কোরের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া ২৭ শে মার্চ সন্ধ্যায় পাতায়ার দুসিত থানি হোটেলে পাতায়ার স্থানীয় প্রশাসন ও প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য একটি অভ্যর্থনার অনুষ্ঠিত হয়। ২৯ শে মার্চ সন্ধ্যায় নগরীর আল-মেরোজ হোটেলে ব্যাংককস্থ বাংলাদেশ কম্যুনিটির সৌজন্যে একটি অভ্যর্থনা ও নৈশভোজের আয়োজন করা হয়েছে।

৪।           স্বাধীনতার ৫০ বছর এবং জাতীয় দিবস ও মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে দূতাবাসের উদ্যোগে থাইল্যান্ডের বহুল প্রচারিত দৈনিক ব্যাংকক পোস্টে একটি বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশিত হয়। এতে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণীসমূহ প্রকাশিত হয়। ক্রোড়পত্রে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী, বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাসহ থাইল্যান্ড ও কম্বোডিয়ায় দূতাবাসের উল্লেখযোগ্য কর্মকান্ডসমূহ তুলে ধরা হয়।